আজ: ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, বৃহস্পতিবার, ১০ ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ৭ জমাদিউস-সানি, ১৪৩৯ হিজরী, সকাল ৭:১২
সর্বশেষ সংবাদ
অপরাধ, জেলা সংবাদ ব্যবসায়ীকে অপহরণ, ছাত্রলীগ নেতার ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি

ব্যবসায়ীকে অপহরণ, ছাত্রলীগ নেতার ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি


পোস্ট করেছেন: niher sarkar | প্রকাশিত হয়েছে: ০১/২৩/২০১৮ , ৩:০৭ অপরাহ্ণ | বিভাগ: অপরাধ,জেলা সংবাদ


নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
বরিশালের গৌরনদী সরকারি কলেজের ছাত্র সংসদের নাট্য সম্পাদক ও কলেজ ছাত্রলীগের সদস্য বেল্লাল রেজভী ও তার দুই সহযোগীর বিরুদ্ধে ব্যবসায়ীকে অপহরণ করে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবির অভিযোগ পাওয়া গেছে।
চাঁদা না দেয়ায় গত সোমবার রাতে ওই ব্যবসায়ীকে অপহরণ করে একটি বাড়িতে চার ঘণ্টা আটকে রেখে সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর রেখে ছেড়ে দেয়া হয়।
অপহরণকৃত ব্যবসায়ী হলেন, গৌরনদী উপজেলার পালরদী গ্রামের আলমগীর হোসেনের ছেলে মো. তুহিন। তিনি গৌরনদী টিঅ্যান্ডটি মার্কেট সংলগ্ন এলাকায় মেসার্স মদিনা মেডিকেল হল নামের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করছেন।
ব্যবসায়ী তুহিন জানান, তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে রোগী দেখানোর কথা বলে ভেতরে প্রবেশ করেন ছাত্রলীগ নেতা ও উত্তর পালরদী গ্রামের কামাল মিয়ার ছেলে বেল্লাল রিজভী এবং তার সহযোগী একই গ্রামের আব্দুল সরদারের ছেলে সাগর সরদার, আশোকাঠি গ্রামের কালু বেপারীর ছেলে রিপন বেপারী।
তারা চিকিৎসা সম্পর্কে বিভিন্ন বিষয়ে জানতে চাওয়ার একপর্যায়ে মেডিকেল হলের চিকিৎসক তৌহিদুর রহমান, ফার্মাসিস্ট বেল্লাল হোসেন ও স্টাফ আকলিমা আক্তারকে একটি কক্ষে তালাবদ্ধ করে রাখেন এবং ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন।
ব্যবসায়ী তুহিন জানান, টাকা না দেয়ায় বেল্লাল রেজভী ও তার সহযোগীরা তাকে ভয়ভীতি দেখিয়ে বলে তোর দোকানে বিভিন্ন জেহাদি বইপত্র রয়েছে। টাকা না দিলে তোকে ধরিয়ে দেয়া হবে।
টাকা দিতে অস্বীকার করলে তারা তাকে একটি মোটরসাইকেলে তুলে আশোকাঠি এলাকায় একটি ভবনে রাত সাড়ে ৯টা পর্যন্ত আটকে রাখে। ১০ লাখ টাকা দেয়ার জন্য হুমকি দিতে থাকে। একপর্যায়ে জিম্মি করে তার কাছ থেকে একশ পঞ্চাশ টাকার জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে জোরপূর্বক স্বাক্ষর নেন।
তুহিন আরও জানান, তাকে তুলে নেয়ার খবর পেয়ে স্বজনরা মোবাইলে ফোন দিলে মোবাইল কেড়ে নিয়ে তাদের শিখিয়ে দেয়া কথা বলতে বাধ্য করেন। একপর্যায়ে পুলিশের টের পেয়ে তার পকেটে থাকা নগদ ২০ হাজার টাকা রেখে বিষয়টি কাউকে না জানানোর হুমকি দিয়ে ছেড়ে দেয়।
ফার্মাসিস্ট বেল্লাল হোসেন বলেন, তাদেরকে একটি কক্ষে তালাবদ্ধ করে চাঁদাবাজরা চলে যায়। একপর্যায়ে মোবাইলে বিষয়টি তুহিনের স্বজনদের জানাই।
মদিনা মেডিকেল হল মালিকের ছোট বোন শারমিন আক্তার বলেন, ভাইকে অপহরণের খবর পেয়ে রাতে পুলিশকে জানাই। পুলিশকে জানানোর বিষয়টি টের পেয়ে রাত সাড়ে ৯টার দিকে আমার ভাই তুহিনকে মুক্ত করে দেয়।
এ বিষয়ে জানতে ছাত্রলীগ নেতা বেল্লাল রেজভীর ব্যক্তিগত মোবাইলে একাধিকবার কল দিলেও রিসিভ করেননি তিনি। পরবর্তীতে ক্ষুদে বার্তা পাঠিয়ে এক ঘণ্টা পর পুনরায় মোবাইল কল দিলেও বেল্লাল রেজভী রিসিভ করেননি। এছাড়া সাগর সরদার ও রিপন বেপারীর মোবাইল বন্ধ পাওয়া গেছে।
এ ব্যাপারে গৌরনদী মডেল থানা পুুলিশের ওসি মো. মনিরুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, বিষয়টি ব্যবসায়ী তুহিন মৌখিকভাবে তাকে অবহিত করেছেন। কিন্তু এখনো কোনো লিখিত অভিযোগ দেননি। লিখিত অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Pin on Pinterest0Share on LinkedIn0Share on Tumblr0Email this to someonePrint this page

Comments

comments

Close