সর্বশেষ সংবাদ
বিনোদন আমি ‘পাগলামি’ করতে চাই তবে…

আমি ‘পাগলামি’ করতে চাই তবে…


পোস্ট করেছেন: bhorerkhobor | প্রকাশিত হয়েছে: 09/24/2018 , 8:46 am | বিভাগ: বিনোদন


সাবর্ণী রয়। ওপার বাংলার জনপ্রিয় টিভি সিরিয়াল টাপুর টুপুরে কাজ করে বেশ সুনাম কুড়িয়েছেন। বর্তমানে সিরিয়ালের পাশাপাশি বেশ কিছু বিজ্ঞাপনচিত্রসহ তামিল ও টালি সিনেমায় কাজ করে ব্যাস্ত সময় পাড় করছেন এই অভিনেত্রী। কিছুদিন আগে তিনি বাংলাদেশে ওহ মাই লাভ শিরোনামে একটি চলচ্চিত্রে কাজ করে গেছেন। এর আগেও তিনি বাংলাদেশে এসেছিলেন। তখনও এসেছিলেন চলচ্চিত্রের কাজ করার জন্যই। ঢাকাই ছবির নায়ক বাপ্পি চৌধুরীর সাথে জুটি বেধে কাজ করেছিলেন কমল সরকারের পাগলামি নামের একটি চলচ্চিত্রে।

চলচ্চিত্রটির শ্যুটিং করতে এসে বিপাকে পড়েছিলেন সাবর্ণী। পাগলামি সিনেমা নানা বিষয় নিয়ে পূর্বপশিমের সাথে কথা হয় সাবর্ণীর। পাগলামি সিনেমার বিষয়ে কথা বলতে চাইলে সাবর্ণী জানান, আমি খুব অবাক হয়েছি ঢাকাতে নাকি আমাকে নিয়ে কথা হচ্ছে আমি নাকি ছবিটির শ্যুটিং আটকে দিয়েছি, ইচ্ছা করে কাজটি করছি না। আসলে এমন কিন্তু কিছুই না। আসল কথা হল আমি আমার যোগ্য বকেয়া সম্মানীটা শুধু চেয়েছিলাম আর বাংলাদেশে কাজ করবার জন্য প্রপার ওয়ার্ক পারমিট নিয়ে কাজ করতে চেয়েছি। এর বেশী কিছুনা। আমি যখন প্রথম এ ছবির কাজ করতে বাংলাদেশে এসেছিলাম তখন আমি এসেছিলাম ট্যুরিষ্ট ভিসায়। তখন একটা পুলিশি ঝামেলাও হয়েছিল ব্যপারটা নিয়ে। আমি পরিচালককে বলেছি উনার কাছে যদি আমার কাজের ওয়ার্ক পারমিট থাকে তবে সেটা আমাকে পাঠাক, আমার ভিসার জন্য যা যা লাগে তার ব্যবস্থা করুক আমি কাজটা করতে চাই।

পাগলামি সিনেমার সম্মানী বাকীর বিষয়ে জানতে চাইলে সাবর্ণী রয় বলেন, আমি যখন গত বছর এপ্রিলে পাগলামির শ্যুটিং করেছিলাম তখনের পেমেন্ট এখনো বাকী আছে। এখনো আমি পেমেন্ট পাইনি।

পাগলামি ছবিতে কাজ করা প্রসঙ্গে সাবর্ণী আরও বলেন, আমি যেহেতু সিনেমাটার ৭০ ভাগ কাজ করে ফেলেছি তো আমি বাকী ৩০ ভাগ কাজও করতে চাই তবে অবশ্যই তা আমার পূর্বের পাওনা ও বাংলাদেশে কাজের ওয়ার্ক পারমিট বুঝে পেলেই হবে। হয়তোবা আর ৬ থেকে ৭ দিনের কাজ বাকী আছে। এক্ষেত্রে আমি বলব আমি কলকাতা বা তামিলে যেমন কাজ করে যাচ্ছি বাংলাদেশেও আমি একইভাবে কাজ করে যেতে চাই। আমি যেখানে আমার ক্যারিয়ার বানানোর জন্য কাজ করছি সেখানে কেন আমি আমার ক্যারিয়ারে একটা বদনাম নিবো? পাগলামি ছবিটা যদি বাংলাদেশে ভালভাবে শেষ হয়ে রিলিজ হয় তাহলে তো আমার জন্যই ভালো। সেখানে আমার দুটো ছবি একসাথে মুক্তি পাবে।

পাগলামি সিনেমার শ্যুটিং এর সময় বা পরবর্তী সময়ে পরিচালক বা নায়কের সাথে কোন ঝামেলা হয়েছিলো কিনা জানতে চাইলে সাবর্ণী বলেন, না আমি আর বাপ্পি দু’জনে খুব ভালো বন্ধু। শ্যুটিংয়ের সময় বাপ্পি আমাকে যথেষ্ট সহযোগিতা করেছে। এমনকি বাপ্পি কিছুদিন আগে যখন কলকাতা এসেছি তখন ও আমাকে ফোন করেছিল। আর পরিচালকের সাথে আমার কোন বিষয়ে ঝামেলা হয়নি। আমি শুধু তার কাছে আমার বকেয়া পাওনা টাকা চেয়েছি সাথে ওয়ার্ক পারমিট। তার সাথে তো আমার কোন পারসোনাল ঝামেলা নেই।

সাবর্ণী রয়ের কথার ভিত্তিতে পাগলামি ছবির পরিচালক কমল সরকারের সাথে পূর্বপশ্চিমের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তিনি তার ফোনটি রিসিভ করেননি।

প্রসঙ্গত, কিছুদিন আগেই ‘ওহ মাই লাভ’ শিরোনামে একটি ছবিতে অভিনয় করছেন কলকাতার ‘টাপুর টুপুর’ সিরিয়ালের অন্যতম চরিত্র রূপদানকারী অভিনেত্রী সাবর্ণী রয়। বাঙ্গালী মা আর বিহারী বাবার আদরের মেয়ে সাবর্ণী রয় মূলত একজন ইঞ্জিনিয়ার। শখের বসেই এসেছিলেন মডেলিং করতে। টালিগঞ্জের অভিনেত্রী সাবর্ণীর যাত্রা শুরু ২০১১ সালে র‍্যাম্প মডেলিংয়ের মধ্য দিয়ে। ২০১২ সালে স্টার জলসার জনপ্রিয় মেগা ধারাবাহিক নাটক ‘টাপুর টুপুর’-এ অভিনয়ের মধ্য দিয়ে জনপ্রিয়তা পান তিনি।

Comments

comments

Close