সর্বশেষ সংবাদ
অপরাধ বিদ্যুৎ অফিস ও হাসপাতালে দুদকের অভিযান

বিদ্যুৎ অফিস ও হাসপাতালে দুদকের অভিযান


পোস্ট করেছেন: Staff Reporter | প্রকাশিত হয়েছে: 04/03/2019 , 9:03 am | বিভাগ: অপরাধ


 

চাঁদপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২ এর অধীন ফরিদগঞ্জ জোনাল অফিসে নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগে অভিযান চালিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। গ্রাহকদের জিম্মি করে এ অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা অবৈধভাবে অর্থ গ্রহণ করছেন- দুদক অভিযোগ কেন্দ্রে (হটলাইন- ১০৬) পাওয়া এমন অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে কমিশনের কুমিল্লা জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মাহাতাব উদ্দীন ও আহমেদ ফরহাদ হোসেনের নেতৃত্বে একটি টিম বুধবার অভিযান পরিচালনা করে।

অভিযান চলাকালে দুদক টিম দেখতে পায়, মিটাররিডার ও বিল প্রস্তুতকারীরা নানাভাবে গ্রাহকদের নিকট হতে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। অধিকাংশ ক্ষেত্রে মাসিক বিল নিয়মিতভাবে প্রদান করা হচ্ছে না। একাধিক মাসের বিল একসঙ্গে প্রস্তুত করা হচ্ছে, ফলে গ্রাহকদের অতিরিক্ত হারে বিল প্রদান করতে হচ্ছে। এছাড়া কোনো নোটিস প্রদান না করে আবাসিক সংযোগের গ্রাহকদের বাণিজ্যিক হারে বিল করা হচ্ছে। মিটাররিডাররা মিটার যাচাই না করে মনগড়া বিল প্রস্তুত করছেন- এমন বেশকিছু প্রমাণও পায় দুদক টিম।

দুদক টিমের অবস্থানকালে ভুক্তভোগীরা নতুন সংযোগ ও মিটার প্রদানের সময় নির্ধারিত অর্থের অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগ করেন। মিটারের জামানত ও নিবন্ধনবাবদ মাত্র একজন নতুন গ্রাহকের ৪৫০ টাকা প্রদানের হার নির্ধারিত থাকলেও প্রত্যেকের নিকট থেকে কমপক্ষে দুই হাজার থেকে আড়াই হাজার টাকা আদায় করা হচ্ছে।

ওই অর্থ প্রদান না করলে সংযোগ দেয়া হচ্ছে না মর্মেও অভিযোগ আসে। দুদক টিমের অনুসন্ধানে ২০১৮ সালে ৪২৭টি এবং ২০১৯ সালের মার্চ মাস পর্যন্ত নতুন সংযোগের ২০৯টি আবেদন অনিষ্পন্ন রয়েছে বলে জানা যায় এবং এ অচলাবস্থা অনৈতিক অর্থ প্রদান না করার কারণে হয়েছে মর্মে প্রতীয়মান হয়। একইভাবে অনুমোদিত কিন্তু সংযোগ দেয়া হয়নি এমন ১২৭টি আবেদনের সন্ধান পায় দুদক।

দুদক টিম এসব অভিযোগ খতিয়ে দেখে এবং পর্যবেক্ষণসমূহ মহাব্যবস্থাপকের নিকট উপস্থাপন করে। তিনি এসব অনিয়মের বিষয়ে দ্রুত যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে মর্মে আশ্বাস দেন। এনফোর্সমেন্ট টিম তাদের সুপারিশসহ প্রতিবেদন কমিশনের নিকট পেশ করবে।

অপরদিকে, মহাখালীর জাতীয় বক্ষব্যধি ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে অনিয়মের অভিযোগে দুদকের সহকারী পরিচালক নার্গিস সুলতানার নেতৃত্বে অভিযান চালানো হয়। হাসপাতালের বেশ কয়েকজন কর্মচারীর বিরুদ্ধে রোগী ও স্বজনদের হয়রানি করে অর্থ আদায়ের অভিযোগ পায় দুদক এনফোর্সমেন্ট টিম। দুদক টিম তাদের সুপারিশসমূহ হাসপাতালের পরিচালকের নিকট উপস্থাপন করে।

দীর্ঘদিন ধরে যারা এখানে চাকরি করছেন তাদের অন্যত্র বদলির অনুরোধ জানানো হয় দুদকের পক্ষ থেকে। দুদক টিমের সুপারিশ আমলে নিয়ে সিস্টেম উন্নয়নের পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে বলে আশ্বস্ত করেন হাসপাতাল পরিচালক।

Comments

comments

Close