সর্বশেষ সংবাদ
খেলাধূলা দেশের হকি খেলোয়াড়রা এখন বেকার!

দেশের হকি খেলোয়াড়রা এখন বেকার!


পোস্ট করেছেন: bhorerkhobor | প্রকাশিত হয়েছে: 02/08/2020 , 7:33 pm | বিভাগ: খেলাধূলা


চেয়ার নিয়ে টানাটানিতে দেশের হকির অবস্থা যাচ্ছেতাই। ঘরোয়া কিংবা আন্তর্জাতিক আসর আয়োজনের চেয়ে হকি ফেডারেশনের পদ পেতে বেশি দৌড়ঝাঁপ ছিল কর্মকর্তাদের। নির্বাচনের পর হকিতে সুবাতাসের ইঙ্গিত দেখা গিয়েছিল। কিন্তু ক্যাসিনো ব্যবসায় নাম ওঠায় সাধারণ সম্পাদক একেএম মমিনুল হক সাঈদ এখন বিদেশে। হকির গুরুত্বপূর্ণ এই কর্মকর্তা নেই, খেলাও বন্ধ। ঘরোয়া কিংবা আন্তর্জাতিক; কোনো আসরই হচ্ছে না। রাসেল মাহমুদ জিমি-কৃষ্ণ কুমাররা এখন অনেকটাই বেকার। আর খেলা না থাকায় র‌্যাংকিংয়েও পিছিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ দল। র‌্যাংকিংয়ে বাংলাদেশ এতটাই পিছিয়ে গেছে, একসময় যে সিঙ্গাপুরকে হেসেখেলে হারাত, তারাই কিনা এখন লাল-সবুজের দলটির ওপরে। বতর্মান র‌্যাংকিংয়ে বাংলাদেশের অবস্থান ৩৮তম, সিঙ্গাপুরের ৩৬তম। আর বাংলাদেশের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী ওমান আছে ২৭ নম্বরে।

আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বড় কোনো আসরে সিনিয়র দল খেলেছিল ২০১৮ সালে জাকার্তায় অনুষ্ঠিত এশিয়ান গেমসে। এরপর অভিজ্ঞতা অর্জনের জন্য এশিয়ান ইনডোর গেমসে খেলার পর আর কোনো কার্যক্রমই নেই জাতীয় দলকে নিয়ে। হকির কার্যক্রম বলতে এখন বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্কুল হকির টুর্নামেন্ট। ৮০টি স্কুলকে নিয়ে এ প্রতিযোগিতার নয়টি ভেন্যুর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হলো। সর্বশেষ গত বছর বিজয় দিবস হকি টুর্নামেন্টে খেলেছিলেন জিমি-শিতুলরা। অথচ ২০১৯ সালেই শুরু হওয়ার কথা ছিল প্রিমিয়ার লিগের দল বদল আর ডিসেম্বরে ক্লাব কাপ টুর্নামেন্ট। সেটাও হয়নি। ঘরোয়া ও আন্তর্জাতিক খেলা না থাকায় এখন বেকায় হকির খেলোয়াড়রা। হকির এমন পরিস্থিতি ভীষণ হতাশায় দিন কাটছে খেলোয়াড়দের।

খেলা ছাড়া কতটা কষ্টে আছেন তা মুখ ফুটেই বলে দিলেন জাতীয় দলের তারকা কৃষ্ণ কুমার, ‘২০১৮ সালে জাকার্তায় খেললাম এশিয়ান গেমস। এক বছর পর এশিয়ান ইনডোর গেমস। আর এখন আমাদের কোনো খেলা নেই। প্রিমিয়ার লিগ নেই, ক্লাব কাপ নেই। আমরা কি করব বুঝতে পারছি না। অবশ্য ফেডারেশন এখন অনূর্ধ্ব-২১ যুবদল নিয়েই ব্যস্ত। যারা অনূর্ধ্ব-২১ এশিয়া কাপ হকির বাছাই পর্বে খেলবে।’ র‌্যাংকিং নিয়ে কৃষ্ণ কুমার বলেন, ‘খেলা না হলে তো র‌্যাংকিং পেছাবেই। এটাই স্বাভাবিক। সিঙ্গাপুরের বিপক্ষে আমরা সব সময় জিতেছি। এবার তারাও আমাদের ওপরে উঠে গেল। আর ওমানের সঙ্গে আমাদের তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতা হতো। সেই ওমান এখন ২৭তম স্থানে। না খেললে তো আর র‌্যাংকিংয়ে এগোনো যায় না।’

সাধারণ সম্পাদক সাঈদ দেশে না থাকায় আপাতত ভারপ্রাপ্ত হিসেবে আছেন মোহাম্মদ ইউসুফ। খেলা নেই কথাটি মানতে পারেননি ইউসুফ, ‘আসলে আমরা একটি হযবরল অবস্থায় পড়ে গেছি। শুধু লিগ ছাড়া সবই চলছে। যদিও এখন স্কুল হকি নিয়েই আমরা ব্যস্ত। ৮০টি স্কুল নিয়ে নয়টি ভেন্যুতে স্কুল হকির আয়োজন করছি। তাই একটা একটা করে খেলা গড়াতে হবে। ১৩ ফেব্রুয়ারি শহীদ স্মৃতি হকি টুর্নামেন্টে সার্ভিসেস দলের জাতীয় খেলোয়াড়রা খেলতে পারবে। তাছাড়া এ বছরেই লিগ হবে। আমাদের এখন প্রথম লক্ষ্য অনূর্ধ্ব-২১ এশিয়া কাপ বাছাই পর্ব নিয়ে।’

Comments

comments

Close