সর্বশেষ সংবাদ
জেলা সংবাদ করোনাকে জয় করে ঘরে ফিরলেন সদরের দুলাল মিয়া

করোনাকে জয় করে ঘরে ফিরলেন সদরের দুলাল মিয়া


পোস্ট করেছেন: ভোরের খবর ডেস্ক | প্রকাশিত হয়েছে: 05/09/2020 , 9:55 am | বিভাগ: জেলা সংবাদ


এজি লাভলু, স্টাফ রিপোর্টার

কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার বেলগাছা ইউনিয়নের পাঠানপাড়ার শিবেরপাঠের বাসিন্দা দুলাল মিয়া (৪৫) করোনা যুদ্ধে জয়ী হয়ে বাড়ী ফিরলেন।

সদর উপজেলার প্রথম করোনা আক্রান্ত রোগী সুস্থ্য হওয়ার খবরে এলাকার মানুষের মাঝে অনেকখানি স্বস্তি ফিরে এসেছে বলে জানা গেছে। এনিয়ে জেলায় মোট ০৪ জন করোনা রোগী সুস্থ্য হয়ে বাড়ি ফিরলেন।

৮ মে (শুক্রবার) শেষ বিকেলে জেলা স্বাস্থ্যবিভাগ ও জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাকে গোলাপ ফুলের তোড়া শুভেচ্ছা জানায় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো: হাফিজুর রহমান। দুলাল মিয়া গত ২০ এপ্রিল থেকে দীর্ঘ ১৭ দিন করোনার সঙ্গে যুদ্ধ করে কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের বিশেষ আইসোলেশন ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

করোনার সাথে যুদ্ধ করে সুস্থ্য হয়ে ওঠা দুলালকে বিদায়ের মুহুর্তে জেনারেল হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডা: আবু মোহাম্মদ জাকিরুল ইসলাম বলেন, আপাতত বাড়িতে গিয়ে কারো সংস্পর্শে আসবেন না। হোমকোয়ারেন্টাইনে থাকার পরামর্শ দেন তিনি। সিভিল সার্জন স্বাস্থ্যবিধি মেনে তার বাড়ি গিয়ে আরো ১৪ দিন হোমকোয়ারেন্টানে থাকার পরামর্শ প্রদান করেন। হোমকোয়ারেন্টাইন শেষে তার আবার করোনা টেষ্ট করা হবে বলে জানান তিনি।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. নজরুল ইসলাম জানান, দুলাল মিয়া আক্রান্ত হয়ে আইসোলেশনের সময় দুই দফা নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হলে দুইবারই করোনা পরীক্ষার ফল নেগেটিভ আসে।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো: হাফিজুর রহমান বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলে বাড়িতে থাকার এবং স্বাস্থ্য বিভাগের পরামর্শ মোতাবেক চলার পরামর্শ প্রদান করেন। সমস্যা হলে স্বাস্থ্য বিভাগের সাথে এবং চেয়ারম্যানকে জানাতে হবে বলে জানান তিনি।

অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সিভিল সার্জন ডা: হাবিবুর রহমান, জেনারেল হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডা: আবু মোহাম্মদ জাকিরুল ইসলাম, ভারপ্রাপ্ত সদর ইউএনও মইনুল ইসলাম, সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. নজরুল ইসলাম, মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা. মঈনুদ্দিন, প্রেসক্লাব সভাপতি এড.আহসান হাবীব নীলু ও বেলগাছা ইউপি চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমানসহ হাসপাতালের কমকর্তা-নার্সসহ আরো অনেকে।

Comments

comments

Close